৪৮ বছর একসঙ্গে পথ চলা আজও অব্যাহত অমিতাভ,জয়ার সংসার

বর্তমান খবর ডেস্ক : দেখতে দেখতে ৪৮টা বছর পার করে ফেললেন তারকা দম্পতি। বৃহস্পতিবার (৩ জুন) তাদের বিবাহবার্ষিকী। এই দীর্ঘ জার্নির সবটাই যে স্মৃতিমধুর তা কিন্তু নয়। সম্পর্কে এসেছে উথালপাথাল। আবার সবটা সামলেও নিয়েছেন দু’জনে। বিবাহবার্ষিকীতে ফিরে দেখা যাক অমিতাভ-জয়ার সেই সিনেমার মতো প্রেমের আখ্যান। উঠতি অমিতাভকে দেখেই নাকি রেখা বুঝেছিলেন এই মানুষটা একদিন বিশ্ব কাঁপাবে। ইন্ডাস্ট্রির গুঞ্জন,রাজেশ খান্নার নাকি অমিতাভ-জয়ার সম্পর্ক নিয়ে আপত্তি ছিল।

কারণ রাজেশ ছিলেন জয়ার ভালো বন্ধু। অন্যদিকে কর্মক্ষেত্রে অমিতাভ ছিলেন রাজেশের প্রতিদ্বন্দ্বী। রাজেশ খান্নার আপত্তিতে যদিও বিশেষ কাজ হয়নি। চুটিয়ে প্রেম করেছেন তারা। জাঞ্জির ছবিতে অভিনয়ের পর অমিতাভের সাফল্য ছড়িয়ে পড়তে থাকে। তখন আর তিনি নিউকামার নন, একেবারে বচ্চনসাব। জাঞ্জিরের সাফল্য উদযাপন করতে অমিতাভ ঠিক করেন বন্ধুবান্ধবদের নিয়ে লন্ডনে উড়ে যাবেন তিনি। সঙ্গে যাবেন জয়াও।

কিন্তু প্রেমিকাকে নিয়ে লন্ডন ভ্রমণের ঘোর আপত্তি ছিল বাবা হরিবংশ রাই বচ্চনের। তিনি ছেলেকে সাফ জানিয়ে দেন জয়াকে নিয়ে লন্ডন যেতে হলে আগে বিয়ে করতে হবে। ব্যস এক রাতের মধ্যেই জোর তোড়জোড়। ঘরোয়া ভাবেই কাছের মানুষদের নিয়ে জয়ার সঙ্গে বিয়ে হয়ে গেল অমিতাভের।

বিয়ের পর দিনই বন্ধুবান্ধব নিয়ে-সদ্য বিবাহিত স্ত্রীকে নিয়ে বিগ বি উড়ে গেলেন লন্ডন। সেখানে তখন জোড়া সেলিব্রেশন। একদিনে হনিমুন অন্যদিকে জাঞ্জিরের সাফল্য। কিন্তু সুখ চিরস্থায়ী নয়। বিয়ের বেশ কয়েক বছর পরেই জয়া-অমিতাভের সংসারে প্রবেশ আর এক ব্যক্তির। তিনি রেখা।

দক্ষিণী সুন্দরী,বুদ্ধিমতী। যাকে ঘিরে আবর্তিত একটা লম্বা সময়। ইন্ডাস্ট্রিতে তখন রেখা-অমিতাভের প্রেম নিয়ে জোর গুঞ্জন। সে কথা কানে পৌঁছায় জয়ারও। জয়া সংবাদ মাধ্যমের সামনে এ নিয়ে আজও মুখ খোলেননি। কিন্তু রেখা খুলেছিলেন বেশ কিছু বছর আগে। এক দীর্ঘ নীরবতার পর।

রেখা জানান,প্রেম নিয়ে যখন উত্তাল বলিউড এমনই এক সময় একবার বাড়িতে নৈশভোজে রেখাকে আমন্ত্রণ জানান জয়া। রেখা ভেবেছিলেন জয়া বুঝি এই সম্পর্ক নিয়ে প্রশ্ন করবেন তাকে। সেই মতো প্রস্তুতি নিয়েই পৌঁছে যান বচ্চন পরিবারের ভেতরে। কিন্তু না। সে সব কিছুই হয়নি।

রেখা জানান, সেদিন জয়ার সঙ্গে অনেক কিছু নিয়ে কথা হয়েছিল তার। কাজ, ইন্ডাস্ট্রি, খাওয়া দাওয়া, কিন্তু অমিতাভ বচ্চনের প্রসঙ্গ আসেনি একবারও। তবে যাওয়ার আগে রেখাকে জয়া বলেছিলেন, ‘যাই হোক না কেন অমিতকে ছেড়ে আমি কোথাও যাব না’।

রেখা-অমিতাভের প্রেম পরিণতি পায়নি। তাদের প্রেমের সমাপ্তি কী করে হয়েছিল তা আজও ধোঁয়াশা। তবে জয়া ছেড়ে যাননি অমিতাভকে। ৪৮ বছর আগের শুরু হওয়া তাদের একসঙ্গে পথ চলা আজও অব্যাহত।

আরও পড়ুন
Loading...