১১ জুন ২০০৮ দেশে প্রকৃত গনতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠিত হয়েছে – ড.হাসান মাহমুদ

বর্তমান খবর : তথ্য মন্ত্রী ড.হাসান মাহমুদ বলেছেন ১১ জুন জননেত্রী শেখ হাসিনা কারামুক্তি পেয়েছেন, তার চেয়ে বড় কথা ১১ জুন ২০০৮ দেশে প্রকৃত গনতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস উপলক্ষে আজ ১১ জুন সকাল সাড়ে ১১ টায় কলাবাগান ক্রীড়া চক্র মিলনায়তনে আলোচনা সভা, দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের প্রধান অতিথির ভাষনে তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাসান মাহমুদ এ কথা বলেন।

তিনি বলেন- ১/১১-এর সেনা শাসিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার ২০০৭ সালের ১৬ জুলাই জননেত্রী শেখ হাসিনাকে গ্রেফতার করে গনতন্ত্রের পায় শিকল পরিয়েছে। স্বেচ্ছাসেবক লীগ কেন্দ্রীয় সভাপতি নির্মল রঞ্জন গুহের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভা সঞ্চালনা করেন স্বেচ্ছাসেবক লীগ কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক আফজালুর রহমান বাবু। মোনাজাত শেষে তথ্য মন্ত্রী ড.হাসান মাহমুদ স্বেচ্ছাসেবক লীগের করোনা বুথ উদ্বোধন করেন।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সিনিয়র সহ সভাপতি গাজী মেজবাউল হোসেন সাচ্চু,কাজী শহিদুল্লাহ লিটন, নির্মল চ্যাটার্জী, কৃষিবিদ আব্দুস সালাম, এ্যাডভোকেট শহনাজ আক্তার, সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল্লাহ আল সায়েম,আরিফুর রহমান, আবির আল হাসান, মেহেদী হাসান মোল্লা, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিষয়ক সম্পাদক ওবায়দুল হক খান, দপ্তর সম্পাদক আজিজুল হক আজিজ, প্রচার সম্পাদক রফিকুল ইসলাম বিটু, গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক একেএম মনোয়ারুল ইসলাম বিপুল, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক এ্যাড সালমা হাই টুনি, ডিজিটাল এন্ড আর্কাইব বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল হান্নান, সিপার, মনির জাস্টিজসহ কেন্দ্রীয় ও মহানগর নেতৃবৃন্দ।

আলোচনা সভায় বলা হয় দীর্ঘ ১১ মাস কারাভোগের পর ২০০৮ সালের ১১ জুন সংসদ ভবন চত্বরে স্থাপিত বিশেষ কারাগার থেকে মুক্তি পান তিনি। সেনাসমর্থিত ১/১১-এর তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় ২০০৭ সালের ১৬ জুলাই গ্রেফতার হয়েছিলেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এ সময় কারাগারের অভ্যন্তরে শেখ হাসিনা অসুস্থ হয়ে পড়েন। তখন বিদেশে চিকিৎসার জন্য তাকে মুক্তি দেয়ার দাবি ওঠে বিভিন্ন মহল থেকে। আওয়ামী লীগসহ অন্যান্য অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের ক্রমাগত চাপ, আপসহীন মনোভাব ও অনড় দাবির মুখে তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার শেখ হাসিনাকে মুক্তি দিতে বাধ্য হয়। এরপর থেকে দিনটি শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস হিসেবে পালন করে আসছে আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনগুলো।

ড. ফখরুদ্দীন আহমদের নেতৃত্বাধীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দুর্নীতিবিরোধী অভিযানকালে ২০০৭ সালের ১৬ জুলাই গ্রেফতার হন শেখ হাসিনা। বেশ কয়েকটি মামলায় প্রায় ১১ মাস কারাবন্দি ছিলেন তিনি। পরে জরুরি অবস্থার মধ্যেই নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলন ও প্রতিবাদের মুখে এবং উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজনে আট সপ্তাহের জামিনে মুক্তি দেয়া হয় তাকে।

মুক্তি পেয়েই চিকিৎসার উদ্দেশ্যে যুক্তরাষ্ট্রে যান তিনি। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায়ই তার অস্থায়ী জামিনের মেয়াদ কয়েক দফা বাড়ানো হয়। ২০০৮ সালের ৬ নভেম্বর দেশে ফিরলে স্থায়ী জামিন দেয়া হয় তাকে। পরে ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বরের জাতীয় নির্বাচনে ঐতিহাসিক বিজয়ের মাধ্যমে ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি তার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগসহ মহাজোট সরকার গঠিত হয়।

এরপর ২০১৪ ও ২০১৮ সালের নির্বাচনেও বিজয়ী হয়ে সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ। শেখ হাসিনাও টানা তৃতীয়বারসহ চতুর্থ বারের মতো দেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এ বছর বৈশ্বিক মহামারী করোনার কারণে শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস স্বাস্থ্যবিধি মেনে পালন করবে বিভিন্ন সংগঠন।

আরও পড়ুন
Loading...