স্কাউটিংয়ে প্রথম ডক্টরেট অব ফিলোসফি ডিগ্রি অর্জন করলেন বাংলাদেশের ঈসা মোহাম্মদ

বর্তমান খবর,বিশেষ প্রতিনিধি : বিশ্বের সর্ববৃহৎ যুব আন্দোলন হলো স্কাউটিং। এটি ১৯০৭ সালে লন্ডনে শুরু হয়, যা এখন প্রায় বাংলাদেশের প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চালু আছে। বিশ্বব্যাপী প্রচলিত স্কাউটিং আন্দোলন প্রতিষ্ঠার ১১৪ বছর পর এ বিষয়ে প্রথম ডক্টর অফ ফিলোসফি (পিএইচডি) ডিগ্রি অর্জন করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন এ দেশের কৃতিসন্তান ঈসা মোহাম্মদ।

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের ১১৯তম সভার সুপারিশক্রমে এবং ২৫০তম সিন্ডিকেট সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এ পিএইচডি ডিগ্রির অনুমোদন দেয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞপ্তি ও প্রেস রিলিজ থেকে এ তথ্য নিশ্চিত করা সম্ভব হয়।

তাঁর পিএইচডি গবেষণাকর্মের বিষয় ‘ইসলাম ও স্কাউটিংয়ে শিক্ষাদান পদ্ধতির তুলনামুলক পর্যালোচনা:পরিপ্রেক্ষিত বাংলাদেশের কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়’। তার গবেষণাকর্মের তত্ত্বাবধায়ক বিশ্ববিদ্যালয়ের আল-কুরআন অ্যান্ড ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক ড. আ ব ম সাইফুল ইসলাম সিদ্দীকী। পরীক্ষা কমিটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি বিভাগের সাবেক সভাপতি অধ্যাপক ড. মোহা. ইউনুছ এবং বহিরাগত সদস্য ছিলেন আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়, (কোলকাতা, ইন্ডিয়া) এর আরবি বিভাগের চেয়ারম্যান ড. মসিহুর রহমান।

এর আগে ড. ঈসা মোহাম্মদ একই বিভাগ তথা আল কুরআন অ্যান্ড ইসলামিক স্টাডিজ থেকে অনার্স, মাস্টার্স (থিসিস গ্রুপ) ও এমফিল ডিগ্রি অর্জন করেন। তাঁর মাস্টার্স ও এমফিল থিসিস স্কাউটিং বিষয়ক। ড. ঈসা মোহাম্মদ ন্যাশনাল পাবলিক কলেজ, চট্টগ্রাম এর প্রাক্তন অধ্যক্ষ। বর্তমানে তিনি তার নিজস্ব উদ্ভাবিত গবেষণা প্রতিষ্ঠান তথা ‘ইন্টার ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব আল-কুরআন রিসার্চ অ্যান্ড লার্নিং (অাইঅাইকিউঅারএল) এর পরিচালক। তিনি রংপুর জেলার গঙ্গাচড়া উপজেলার কিশামত হাবু গ্রামের মোঃ আব্দুল কুদ্দুস ও শামসুন্নাহার বেগমের পূত্র।

ডক্টর ঈসা মোহাম্মদ বলেন- ‘মহানবী (সা.) যুবকদের নিয়ে হিলফুল ফুজুলে সম্পৃক্ত হন; তাদের সুশৃঙ্খল করে মানবতার কল্যাণে নিমজ্জিত থাকোন। দেশের যুবসমাজ সমৃদ্ধ হলে দেশ সমৃদ্ধ হবে। যে জাতী যত সুশৃঙ্খল সে দেশ ততবেশি উন্নত। স্কাউটিংয়ের মাধ্যমে যুবকগণ হাতে কলমে শেখার সুযোগ পায়। ফলে, পর্যায়ক্রমে সমৃদ্ধ আর সুশৃঙ্খল হয়ে দেশ ও মানবতার কল্যাণে এগিয়ে আসে।’

তিনি আরো বলেন-‘স্কাউটিংয়ে যুবাদের ফিজিক্যাল,ইমোশনাল,স্প্রিরিচুয়্যাল,সোশ্যাল ও ইনটেল্যাকচুয়্যাল ডেভেলপ করা হয়; যা সুশৃঙ্খল ও উন্নত দেশ গঠনে সহায়ক। স্কাউটিংয়ের মাধ্যমে প্রোপার নার্সিং করতে পারলে আত্মনির্ভরশীল, পরিশ্রমী, সময় সচেতন ও দেশপ্রেমী নাগরিক তৈরী করা সম্ভব।’ ড. ঈসা মোহাম্মদ গবেষণাকর্মে সার্বিক সহায়তার জন্য (দেশ-বিদেশের) সংশ্লিষ্ট সকলকের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

আরও পড়ুন
Loading...