সরিষাবাড়ীতে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়ীতে পরকীয়ায় লিপ্ত হওয়া প্রেমিকার অনশন

বর্তমান খবর,সরিষাবাড়ী প্রতিনিধি :
সরিষাবাড়ীতে প্রেমিক-প্রেমিকা পরকীয়া লিপ্ত হওয়ার সময় জনতার হাতে আটক। সুযোগ সন্ধানী ভন্ড প্রেমিক চম্পট। পরে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়ীতে পরকীয়া প্রেমিকার অনশন। ঘটনাটি ঘটেছে জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার ৫নং পিংনা ইউনিয়নের কাওয়ামারা গ্রামে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে,গত রোববার(২০ জুন)দুপুর আড়াই টার দিকে পিংনা সুজাত আলী ডিগ্রী কলেজ এলাকায় এঘটনা ঘটে। ঘটনার প্রত্যক্ষরা বলেন, আনুমানিক দুপুর ২টায় এই প্রেমিকযুগল নির্জন কলেজের ভিতর প্রবেশ করে এবং দীর্ঘক্ষণ তাদের বের হওয়ার কোন সাড়াশব্দ না পাওয়ায়। পরে কয়েকজন মিলে বিষয়টি কলেজের ভিতর প্রত্যক্ষ করতে যান। তাদের অসামাজিকতা দেখে দুজনকেই আটক করেন এলাকাবাসী।

পরে লোকজন জমায়েত হতে থাকে,এমতাবস্থায় সুযোগ বুঝে পরকীয়া প্রেমিক চম্পট দেয় ঘটনাস্থল হতে। পরে পরকীয়া প্রেমিকা বিয়ের দাবিতে প্রেমিক সাব্বির এর বাড়ীতে গিয়ে অনশন করছে।

এদিকে পরকীয়া যুগলদ্বয় সম্পর্কে জানা যায়, পিংনা কাওয়ামারা গ্রামের পূর্বপাড়া মজর আলীর কলেজ পড়ুয়া ছেলে সাব্বীর(২৪) এবং একই গ্রামের তফেল উদ্দিনের মেয়ে সাগরিকা(২০) পরকীয়া প্রেমে জড়িয়ে পড়ে। তাঁরা ২ বছর যাবৎ চুটিয়ে প্রেম করে আসছে বলে জানান সাগরিকা।

স্থানীয়রা জানান, সাগরিকা‘র ইতিপূর্বেও দুই বিয়ে হয়েছে একই ছেলের সাথে। তাঁর প্রথম স্বামী অপছন্দ হওয়ায় এবং সাংসারিক বনিবনা না হওয়ায় সে চলে আসে বাপের বাড়ী। পরে তাঁর বাবা পিংনা চিতুলীয়া গ্রামে রজব আলীর ছেলে নাজাতের সাথে তাকে বিয়ে দেন। নাজাত আলী ঢাকায় প্রাণ কোম্পানীতে চাকুরী করার সুবাদে সে সাব্বির এর সাথে পরকীয়া প্রেমে জড়িয়ে পড়ে।

সাগরিকার অনশনে সাব্বির এর পরিবার ঘর তালা দিয়ে অন্যত্র চলে গেছেন বলে জানান এলাকাবাসী। অনশনে ব্রত সাগরিকা জানান সে বিয়ের দাবিতে এ বাড়ীতে এসেছেন। সাব্বির তাকে বিয়ে না করলে সে এখানে আত্মহত্যা করবেন। তাই এলাকাবাসী উক্ত বিষয়টি প্রশাসনের আশুদৃষ্টি কামনা করছেন সমাজের নিরাপত্তার স্বার্থে।

আরও পড়ুন
Loading...