মোহাম্মদ নাসিম অসম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক রাজনীতির পুরোধা ব্যক্তিত্ব ছিলেন: মেনন

বর্তমান খবর,বিশেষ প্রতিনিধি : ১৪ দলের সাবেক কেন্দ্রীয় সমন্বয়ক ও প্রাক্তন মন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ নাসিম একজন অসম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক রাজনীতির পুরোধা ব্যক্তিত্ব ছিলেন। ছাত্র জীবনে প্রগতিশীল রাজনীতির মধ্যমে তাঁর রাজনৈতিক জীবন শুরু হয়। পরবর্তীতে প্রগতিশীল রাজনীতির ভাঙ্গাগড়ার শিকার হয়ে জাতীয়তাবাদী রাজনীতিতে যুক্ত হন।

১৯৭১ সালের মহান স্বাধীনতা সংগ্রমের তিনি একজন সংগঠকের দায়িত্ব পালন করেছেন। পরবর্তীকালে জিয়া-এরশাদের সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে আপোষহীনভাবে রাজপথে লড়াই করেছেন। তিনি গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের জন্য জেল জুলুম মামলা হামলার শিকার হয়েছিলেন।

বিএনপির শাসন আমলে তাঁকে রাজপথে রক্ত দিতে হয়েছে। জঙ্গী গোষ্ঠী বাংলা ভাইয়ের উত্থানের বিরুদ্ধে তিনি সাহসী ভূমিকা পালন করেছেন। ১৪-দলের দায়িত্ব গ্রহণের পরে তিনি মুক্তিযুদ্ধের সকল শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ করার যে সাহসী ভূমিকা পালন করেছেন তা এদেশের মানুষ চিরদিন স্মরণ করবেন।’

শনিবার (১৯ জুন ২০২১) সকাল ১১টায় বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি ঢাকার মহানগরের উদ্যোগে পার্টি অফিস চত্ত্বরে (৩১/এফ তোপখানা রোড, ঢাকা-১০০০) অনুষ্ঠিত স্মরণ সভায় ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে প্রধান অতিথির ভাষণে ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি জননেতা কমরেড রাশেদ খান মেনন এমপি এ অভিমত প্রকাশ করেন। নগর পার্টির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা কমরেড আবুল হোসাইন সভায় সভাপতিত্ব করেন।

সভায় বিশেষ অতিথি বক্তব্যে মোঃ নাসিমকে স্মরণ করার জন্য ওয়ার্কার্স পার্টির প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন মোহাম্মদ নাসিমের পুত্র জননেতা তানভীর শাকিল জয় এমপি।
এছাড়াও স্মরণ সভায় বক্তব্য রাখেন ১৪ দলের অন্যতম শরীক ন্যাপের কেন্দ্রীয় নেতা পরিতোষ দেবনাথ, বাংলাদেশ জাসদের কেন্দ্রীয় নেতা জাকির হোসেন,সাম্যবাদী দলের ঢাকা মহানগরের আহবায়ক বাবুল বিশ্বাস,ওয়ার্কার্স পার্টির নগর নেতা শাদাকাত হোসেন খান বাবুল প্রমুখ। সভা পরিচালনা করেন নগর পার্টির সাধারণ সম্পাদক কমরেড কিশোর রায়।

মেনন বলেন দেশের বর্তমান অবস্থায় ১৪ দলকে আরও সুসংহত করে সাম্প্রদায়িক ও জঙ্গীবাদী শক্তিকে পরাজিত করে অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক সমতাভিত্তিক বাংলাদেশ গড়ার সংগ্রামকে জোরদার করতে হবে। এ লক্ষে বাম-প্রগতিশীল শক্তিকে সাহসী ভূমিকা পালন করতে হবে।

আরও পড়ুন
Loading...