নওগাঁ জেলা ট্রাক-ট্যাংকলরি ও ক্যাভার্ডভ্যান শ্রমিকদের কর্মবিরতি প্রত্যাহার

বর্তমান খবর,সাপাহার(নওগাঁ)প্রতিনিধিঃ
নওগাঁ জেলা ট্রাক-ট্যাংকলরি ও ক্যাভার্ডভ্যান শ্রমিকদের কর্মবিরতি প্রত্যাহার করা হয়েছে। রাজশাহী বিভাগীয় শ্রম দপ্তরের সমঝোতায় নওগাঁ জেলা ট্রাক-ট্যাংকলরি ও ক্যাভার্ডভ্যান পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের দেয়া অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি প্রত্যাহার করে নেয়া হয়।

শনিবার দুপুর ২টায় রাজশাহী বিভাগীয় শ্রম দপ্তরের কার্যালয়ে এক জরুরি সভায় এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। সভায় রাজশাহী বিভাগীয় শ্রম দপ্তরের পরিচালক এস এম এনামুল হক,সহকারি পরিচালক আল মুতাজিদুল ইসলাম,সহকারি পরিচালক মিজানুর রহমান,নওগাঁ জেলা ট্রাক-ট্যাংকলরি ও ক্যাভার্ডভ্যান পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন ২৬৫০ এর সভাপতি রওশন জালাল,সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম,শ্রম ও কল্যাণ সম্পাদক আছির উদ্দিন,কার্যকরী সদস্য খসরু হোসেন,সাবেক সম্পাদক শামীম হোসেনসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।

জানা যায়,সাপাহার থানার লোড পয়েন্ট অফিসের ত্রি-বার্ষিক নির্বাচন বন্ধের জন্য রাজশাহী বিভাগীয় শ্রম দপ্তর বরাবর গত ২৫ মার্চ শ্রমিক ইউনিয়ন ২৬৫০ এর সভাপতি রওশন জালাল লিখিতভাবে অভিযোগ করলে ৩০ মার্চ সরেজমিনে ওই দপ্তরের সহকারী পরিচালক আলমুতাজিদুল ইসলাম ও প্রধান সহকারী বিকাশ নাথ তদন্ত করেন।

কিন্তু এর ফলাফল নওগাঁ জেলা ট্রাক ট্যাংকলরি ও কাভার্ডভ্যান পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন এ পর্যন্ত পায়নি। পরবর্তীতে সাপাহার থানার লোড পয়েন্ট অফিসের ত্রি-বার্ষিক নির্বাচনের পর থেকে ওই সংগঠনের সদস্যদেরকে মারপিট, হুমকি, নির্যাতনসহ নানা সময় সংগঠনের কার্যক্রমে বাধা প্রদান করে। এ বিষয়ে সাপাহার থানায় সংগঠনটি অভিযোগ করলে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা গত ১৮ মে উভয় সংগঠনের শ্রমিকসহ জেলা সংগঠনের নেতৃবৃন্দ নিয়ে এক বৈঠকের আহ্বান করেন।

বৈঠকে শ্রমিক ইউনিয়ন ২৬৫০ এর সদস্যগণ, নওগাঁ জেলা মটর শ্রমিক ইউনিয়ন ২৩৮ এর সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, দপ্তর সম্পাদক ও তাদের ছায়া সংগঠন ২৬৫৮ এর সাধারণ সম্পাদক, অর্থ সম্পাদক, সাংগঠনিক সম্পাদক উপস্থিত ছিলেন। শ্রমিক ইউনিয়ন ২৬৫০ এর নেতাকর্মীরা বলেন, ২০০৬ সালের শ্রম আইনের অধীনে কোন সংগঠন যদি রেজিস্ট্রেশন পেয়ে থাকে তাহলে বিভাগীয় শ্রম দপ্তরের আইন মেনে সাপাহার থানা লোড পয়েন্টের সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনার কাগজপত্র থানার কর্মকর্তার মাধ্যমে দেখাতে বললে তারা বিভিন্ন ভাবে কালক্ষেপণ করতে থাকে। এক সময় থানার কর্মকর্তা সভা দীর্ঘ হওয়ার জন্য দুপুরের খাবারের বিরতি দেন। আর সন্ধ্যা ৭টায় পুনরায় কাগজপত্র দেখে সমস্যার সমাধানের আশ্বাস দেন।

এ সময় শ্রমিক ইউনিয়ন ২৬৫০ এর সদস্যরা দুপুরের খাবার জন্য শ্রমিক নেতা মহরম আলীর বাসায় যাওয়ার পথে সাপাহার ডাক বাংলোর সামনে ২৬৫৮ ও ২৩৮ এর কতিপয় সদস্য সংঘবদ্ধ হয়ে পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে লোহার রড, লাঠিসোটা, তীর ধনুক, হাঁসুয়া নিয়ে সামনে ও পেছন থেকে তাদের উপর হামলা চালায়। এতে ১০/১২জন শ্রমিক মারাত্মক আহত হয়।

ওইদিন সন্ধ্যায় শ্রমিক ইউনিয়ন ২৬৫০ এর সাপাহার উপজেলা শ্রম কল্যাণ উপ-কমিটির নেতা আবুল হোসেন বাদী হয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। শ্রমিক ইউনিয়ন ২৬৫০ সংগঠনের শ্রমিকদের নামে মিথ্যা কাউন্টার মামলা দায়ের করে ২৬৫৮ সংগঠন। এরই প্রেক্ষিতে পুলিশ ২৬৫০ এর তিনজন শ্রমিককে গ্রেপ্তার করে জেল হাজতে পাঠায়। এর প্রতিবাদে ১৯ মে নওগাঁ জেলা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করলে জেলার সাধারণ শ্রমিকদের মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। ফলে ২৬৫০ সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা গত ২২ মে সন্ধ্যায় সংগঠনের কার্যালয়ে জরুরী বৈঠক শেষে তিন দফা দাবি উত্থাপন করে।

তাদের এ সকল দাবি মানা না হলে ৩০ মে সকাল থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য নওগাঁ জেলায় কর্মবিরতি পালনের ঘোষণা দেন। এদিকে গত ২৭ মে ৩ জন শ্রমিক নওগাঁ বিজ্ঞ আদালত থেকে জামিন নেন।

আরও পড়ুন
Loading...