Ultimate magazine theme for WordPress.

বেনাপোলে মাদক নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরের…

কমলগঞ্জে স্বামীকে অচেতন করে স্ত্রীর পরকিয়ায়…

জয়পুরহাটে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে ছিনতাই

0 ৬৬

বর্তমান খবর,জয়পুরহাট প্রতিনিধিঃ
জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল পৌরসভা এলাকা হতে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে এক লাখ টাকাসহ একটি ব্যাগ ছিনতাই করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন ইয়ন গ্রুপ অব কোম্পানির কর্মচারী ও কর্মকর্তা।

জানা গেছে, সোমবার( ২৮ জুন) বিকেলে ক্ষেতলাল পৌরসভা এলাকার ইটাখোলা-মোলামগাড়ীহাট বাজার রাস্তার কাজীপাড়া নামক ব্রিজের পশ্চিম পার্শ্বে ইয়ন গ্রুপ অব কোম্পানির ঔষধ সরবরাহকারী গাড়ী থামিয়ে মোটরসাইকেলের দুই আরোহী ডিবি পুলিশ পরিচয়ে গাড়ির কাগজপত্র যাচাই এবং ব্যাগের ভিতরে কি আছে তা দেখার কথা বলে ব্যাগ ছিনতাই করে নিয়ে পালিয়ে যায়।

ব্যাগে ঔষদের দোকান হতে আদায়কৃত নগদ এক লাখ টাকা, আইডি কার্ড ও কিছু প্রয়োজনীয় কাগজপত্র এবং ভিভো কোম্পানির একটি ১০ হাজার টাকা মূল্যের মোবাইল ফোন ছিল বলে ছিনতাইয়ের স্বীকার কোম্পানি ডেলিভারিম্যান ইলিয়াস হোসেন (৪৫) তার অভিযোগে জানান।

ডেলিভারিম্যান বগুড়া জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার গোপীনাথপুর গ্রামের ইলিয়াস হোসেন জানান, আমি এবং গাড়ির ড্রাইভার ক্ষেতলাল থানা বাজার হতে ইটাখোলা বাজার দিয়ে মোলামগাড়ীহাট যাওয়ার সময় ইটাখোলা বাজার পার হওয়ার একটু পরেই একটি ব্রীজ পাওয়া যায়। সেই ব্রীজের পূর্বে মোটরসাইকেল যোগে দুই জন আরোহী আমাদের গাড়ির সামনে অবস্থান নিয়ে গাড়ীর গতিরোধ করে। তারা দুইজন নিজেদের ডিবি পুলিশের পরিচয় দিয়ে গাড়ির কাগজপত্র এবং অবৈধ কিছু আছে কিনা যাচাই করতে চায়।

তারা গাড়ির কাগজপত্র দেখে এবং শেষে ব্যাগে কি আছে দেখি বলে আমার হাত থেকে ব্যাগটা নিয়ে নেয় তারপর ব্যাগটি আমাকে ফেরত না দিয়ে তার সহযোগীকে নিয়ে মোটরসাইকেল যোগে ইটাখোলা বাজার অভিমুখে চলে যায়। তারা যাওয়ার সময় বলে তোমরা থানায় আসো সেখানে কথা হবে। পরে থানায় গেলে বুঝতে পারি আমরা ছিনতাইকারীর কবলে পড়েছি।

এ বিষয়ে কোম্পানির সিনিয়র সেলস অফিসার বগুড়ার নন্দিগ্রামের জুয়েল আহম্মেদ জানান, আমি সে সময় গাড়ীতে ছিলাম না নামাজ পড়ার জন্য নেমেছিলাম ওরা দুইজন গাড়ীতে ছিল।

গাড়ীর চালক আব্দুর রশিদ (৫২) জানান, ৩২ হতে ৩৫ বয়সী দুই জন লোক ডিবি পুলিশ পরিচয়ে গাড়ীর সামনে দাঁড়ায় এবং হাত হতে টাকার ব্যাগ নিয়ে মোটরসাইকেল যোগে ইটাখোলার দিকে চলে যায়। তারা দেখতে শুনতে সুন্দর। দেখে বুঝার উপায় নেই তারা ছিনতাইকারী।

ক্ষেতলাল থানা অফিসার ইনচার্জ ( ওসি তদন্ত) শাহ আলম জানান, থানায় মৌখিক অভিযোগ করলে পুলিশ পাঠিয়েছিলাম। তবে ঘটনার এখনো কোন সত্যতা খোঁজে পাওয়া যায়নি। তবুও পুলিশি তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.