চট্টগ্রামকে বাণিজ্যিক রাজধানী ঘোষণা করতে হবে-তরফদার মো. রুহুল আমিন

বর্তমান খবর : চিটাগাং চেম্বারের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও সাইফ পাওয়ারটেক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তরফদার মো.রুহুল আমিন বলেন,ব্যবসায়ী-শিল্পপতিদের সুরক্ষা দিতে হবে। বাংলাদেশ ব্যাংকের ক্লাসিফিকেশন নীতিমালায় পরিবর্তন করতে হবে। আমরা চাই না কোম্পানি থেকে কোনো কর্মী ছাঁটাই করতে, কিন্তু দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেলে তখনই বাধ্য হতে হবে।

সোমবার(৩১ মে)দুপুরে আগ্রাবাদ ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে বঙ্গবন্ধু কনফারেন্স হলে আসন্ন জাতীয় বাজেট নিয়ে সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময়কালে তিনি এসব কথা উল্লেখ করে বলেন,করোনার প্রভাবে সারা বিশ্বের মতো বাংলাদেশও এক ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। করোনার দ্বিতীয় আঘাতে ব্যবসা-বাণিজ্য এবং স্থানীয় শিল্প আবারও মুখ থুবড়ে পড়েছে। গেল বছর সরকার কর্তৃক যে প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করা হয়েছিল এই বছরও যেন সেই পরিমাণ অথবা তার থেকে বেশী প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করা হয়।
সরকারিভাবে চট্টগ্রামকে বাণিজ্যিক রাজধানী ঘোষণার দাবিও জানান তিনি।

চেম্বার নব নির্বাচিত সিনিয়র সহ-সভাপতি বলেন,করোনায় ব্যবসা-বাণিজ্যে স্থবিরতা নেমে আসলেও আমাদেরকে ব্যাংক ঋণ পরিশোধ করতে হয়েছে,ট্যাক্স দিতে হয়েছে। প্রণোদনা প্যাকেজের ঋণ পরিশোধের সময়সীমা ডিসেম্বর পর্যন্ত বৃদ্ধি করার দাবি জানান তিনি।

সাইফ পাওয়ারটেক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তরফদার আমিন বলেন,কারো যদি পাঁচটা কোম্পানি থাকে তার মধ্যে একটা কোম্পানির অবনতি হলে তার জেরে অন্যান্য কোম্পানি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। একটি কোম্পানির জন্য যাতে অন্য কোম্পানিগুলো ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সে ব্যবস্থা রাখা প্রয়োজন। ইতিমধ্যে প্রোডাক্ট বিক্রি করতে না পেরে অনেক প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যাচ্ছে।

ট্রেডিং বিজনেসের উপর পয়েন্ট পাঁচ পার্সেন্ট ট্যাক্স প্রত্যাহার করার দাবি জানিয়ে বলেন,প্রতিটি প্রোডাক্ট চার থেকে পাঁচবার হাতবদল হয়। পণ্যের উপর প্রত্যেকবার পয়েন্ট পাঁচ পার্সেন্ট ট্যাক্স দিলে সে পণ্যের দাম এমনিত্ই বৃদ্ধি পায়।

তিনি বলেন, বাজেটে যাতে সকল ব্যবসায়ী সুযোগ-সুবিধা পায় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। বাজেটে কৃষি খাত এবং চিকিৎসা খাতকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে হবে। আমাদের দেশে ব্যবসায়ীদের মেধা অন্যান্য দেশের ব্যবসায়ীদের তুলনায় অনেক আপডেটেড। যারা বিদেশে ব্যবসা করতে চায় তাদের জন্য কিছু ছাড়ের ব্যবস্থা রাখতে হবে,যাতে তারা অন্য দেশে বৈধভাবে ব্যবসা করে দেশের উন্নতিতে ভূমিকা রাখতে পারে।

বাংলাদেশের অর্থনৈতিক চালিকা শক্তি চট্টগ্রাম। চট্টগ্রামে বন্দর থেকে প্রতিদিন চার হাজার কন্টেইনার লোড আনলোডিং কার্যক্রম চলে। যার কারণে রাস্তাঘাটে প্রচুর ট্রাফিক জ্যামের সৃষ্টি হয়। এতে ব্যবসায়ীদের কর্ম সময় নষ্ট হচ্ছে। বে -টার্মিনালের কাজ সম্পন্ন করতে হলে আগে ব্রেক ওয়াটার তৈরি করতে হবে, আশা করছি খুব শীঘ্রই সকল কাজ সম্পন্ন হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন,সময়ের সাথে সবকিছুই পরিবর্তন করতে হয়। ক্লাইমেট এর উপর নির্ভর করে অনেক কিছুই পরিবর্তন করতে হয়। জেটি যেগুলো নতুনভাবে তৈরি করা হবে সেগুলো যাতে দুর্যোগের কথা মাথা রেখেই তৈরি করা হয়।

আরও পড়ুন
Loading...