কোম্পানীগঞ্জে আ’লীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষ

বর্তমান খবর : নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে মির্জা কাদেরের অনুসারী শাহাদাত সিফাতের ফেসবুক লাইভের জের ধরে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় দু’পক্ষের অন্তত ৯ জন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে আরমান(৪৩),মির্জা কাদেরের ছেলে তাশিক মির্জা(২৯) ও মিরাজের(৩৩)নাম জানা গেছে। বৃহস্পতিবার বিকাল ৫টার দিকে কোম্পানীগঞ্জ থানার গেটের সামনে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়,বেলা ৩টার দিকে উপজেলা আওয়ামী লীগের অনুসারীরা ত্রাণ বিতরণ শেষে বসুরহাট বাজারে আসে। তখন মির্জা কাদেরর অনুসারী শাহদাত সিফাত বসুরহাট পৌরসভা ভবন থেকে ফেসবুক লাইভে এসে অকথ্য ভাষায় উপজেলা আওয়মী লীগ,যুবলীগ নেতাদের নিয়ে বক্তব্য দেন। এসময় লাইভটি দেখে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের মাঝে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পরে তারা বসুরহাট বাজারে থানার সামনে জড়ো হয়ে কাদের মির্জার বিরুদ্ধে বিভিন্ন স্লোগান দেয়।

খবর পেয়ে মির্জা কাদেরের ছোট ভাই শাহদাত হোসেন ও ছেলে তাশিক মির্জা পৌরসভা থেকে তাদের অনুসারীদের নিয়ে জিরো পয়েন্ট হয়ে থানার সামনে মুখোমুখি অবস্থান নিলে দুই পক্ষের মধ্যে ইট পাটকেল নিক্ষেপ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

এক পর্যায়ে কাদের মির্জার ছেলে তাশিক মির্জা উপজেলা যুবলীগ সভাপতি আজম পাশা চৌধুরী রুমেলকে আটক করে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে উভয় পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে ৯ জন আহত হয়। এক পর্যায়ে মির্জা কাদেরের অনুসারীরা উপজেলা আওয়ামী লীগ অনুসারী তার ভাগনে ফখরুল ইসলাম রাহাতের থানা সংলগ্ন বাসায় ককটেল নিক্ষেপ করে। শেষে পুলিশ রাহাতের বাসা থেকে একটি অবিস্ফোরিত ককটেল উদ্ধার করে।

আরও পড়ুন
Loading...