ইন্টেলিজেন্ট যানবাহনে বিনিয়োগ বাড়াবে হুয়াওয়ে

বর্তমান খবর ডেস্ক : ব্যবসায়িক সক্ষমতা ও পরিধি বাড়ানোর লক্ষ্যে উন্নত মানের সফটওয়্যার তৈরির পাশাপাশি ইন্টেলিজেন্ট বাহনের সরঞ্জামে বিনিয়োগ বাড়াবে হুয়াওয়ে। এছাড়াও অ্যাডভান্স প্রসেস টেকনিকের ওপর কম নির্ভরশীল ব্যবসা খাতে বেশি মননিবেশ করবে এই প্রতিষ্ঠান।

আজ শেনঝেনে অনুষ্ঠিত ১৮তম গ্লোবাল অ্যানালিস্ট সামিটে এ ঘোষণা দেন হুয়াওয়ের রোটেটিং চেয়ারম্যান এরিক শু। শিল্প ও আর্থিক বিশ্লেষক, খাত সংশ্লিষ্ট নেতৃবৃন্দ এবং মিডিয়া প্রতিনিধিসহ চারশো’রও বেশি অতিথি সামিটে উপস্থিত ছিলেন। এর পাশাপাশি, বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিশ্লেষক ও মিডিয়া প্রতিনিধিবৃন্দ অনলাইনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানটিতে যোগ দেন।

সেশনে এরিক শু হুয়াওয়ের সামনে এগিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে পাঁচটি কৌশলগত উদ্যোগের কথা বলেন। হুয়াওয়ের ২০২০ সালের আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশের পরে এই ঘোষণাটি দেয়া হয়। আর্থিক প্রতিবেদনে দেখা যায় যে, আগের বছরগুলোর তুলনায় তুলনামূলক ধীরগতিতে হুয়াওয়ের প্রবৃদ্ধি ঘটেছে। ইন্টেলিজেন্ট যানবাহনে অধিক বিনিয়োগের পাশাপাশি হুয়াওয়ে নিম্নোক্ত বিষয়গুলোর ওপর জোর দিবে।
 মোবাইল যোগাযোগের বিকাশে ফাইভজি’র ভ্যালু বৃদ্ধি করা এবং খাত সংশ্লিষ্ট অংশীদারদের সাথে
৫.৫জি’এর প্রসার
 সকল ক্ষেত্রে ব্যবহারকারীদের একটি নিরবচ্ছিন্ন, গ্রাহক-কেন্দ্রিক এবং ইন্টেলিজেন্ট অভিজ্ঞতা
প্রদান।
 স্বল্প-কার্বন বিশ্ব গড়ে তুলতে জ্বালানি ব্যয় হ্রাসের লক্ষ্যে উদ্ভাবন।
 সাপ্লাই কন্টিনিউটি চ্যালেঞ্জ শনাক্ত করা।

শু বলেন, ‘সামনে এগিয়ে যাওয়ার সাথে সাথে আমরা আরও কঠিন এবং অস্থিতিশীল বৈশ্বিক পরিবেশে নিজেদের খুঁজে পাবো। পুনরায় কোভিড-১৯ এর প্রকোপ এবং ভূ-রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা প্রতিটি সংস্থা,ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং দেশের জন্য চলমান চ্যালেঞ্জ। আমরা বিশ্বাস করি, আমরা যে সকল সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছি, ডিজিটাল প্রযুক্তি সেগুলোর সমাধান দিতে পারবে। তাই, আমরা আমাদের গ্রাহক এবং অংশীদারদের সাথে উদ্ভাবন ও ডিজিটাল রূপান্তরকে এগিয়ে নিয়ে যাবো, যাতে পুরোপুরি কানেক্টেড ও ইনটেলিজেন্ট বিশ্ব গড়ে তুলতে প্রতিটি ব্যক্তি, বাড়ি এবং প্রতিষ্ঠানকে ডিজিটাল মাধ্যমের আওতায় আনা যায়।’

২০০৪ সালে প্রথম হুয়াওয়ে গ্লোবাল অ্যানালিস্ট সামিট অনুষ্ঠিত হয় এবং তখন থেকেই প্রতি বছর এ সামিট অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ‘বিল্ডিং আ ফুললি কানেক্টেড, ইন্টেলিজেন্ট ওয়ার্ল্ড’ শিরোনামে এ বছরের সামিট ১২ এপ্রিল থেকে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে। সামিটে বেশ কিছু ব্রেকআউট সেশন হবে, যেখানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের শিল্প বিশেষজ্ঞরা তাদের চিন্তা-ভাবনা তুলে ধরবেন এবং ভবিষ্যত ট্রেন্ড নিয়ে আলোচনা করবেন।

হুয়াওয়ে বিশ্বের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান। সমৃদ্ধ জীবন নিশ্চিতকরণ ও উদ্ভাবনী দক্ষতা বৃদ্ধির মাধ্যমে একটি উন্নত ও সংযুক্ত পৃথিবী গড়ে তোলাই প্রতিষ্ঠানটির উদ্দেশ্য। নতুন উদ্ভাবনের মাধ্যমে হুয়াওয়ে একটি পরিপূর্ণ আইসিটি সল্যুশন পোর্টফোলিও প্রতিষ্ঠা করেছে, যা গ্রাহকদের টেলিকম ও এন্টারপ্রাইজ নেটওয়ার্ক, ডিভাইস এবং ক্লাউড কম্পিউটিং-এর সুবিধাসমূহ প্রদান করে। প্রতিষ্ঠানটি বিশ্বের ১৭০টির বেশি দেশ ও অঞ্চলে সেবা দিচ্ছে, যা বিশ্বের এক তৃতীয়াংশ জনসংখ্যার সমান। এক লাখ ৯৪ হাজার কর্মী নিয়ে বিশ্বব্যাপী টেলিকম অপারেটর, উদ্যোক্তা ও গ্রাহকদের সর্বোচ্চ সেবা নিশ্চিত করে ভবিষ্যতের তথ্যপ্রযুক্তি ভিত্তিক সমাজ তৈরির লক্ষ্যে হুয়াওয়ে এগিয়ে চলেছে।

শীর্ষস্থানীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে, গত ২১ বছর ধরে বাংলাদেশের তথ্য-প্রযুক্তি শিল্প, টেলিকম অপারেটর এবং স্থানীয় অংশীদারদের সাথে নিবিড়ভাবে কাজ করে যাচ্ছে, যার মাধ্যমে দেশের সাধারণ মানুষের কাছে তথ্য-প্রযুক্তির সেবা পৌঁছে দিয়ে ’ডিজিটাল বাংলাদেশে’র স্বপ্ন পূরণে অসামান্য ভূমিকা রেখে চলেছে প্রতিষ্ঠানটি। এছাড়া বিভিন্ন সিএসআর কর্মসূচী পরিচালনার মাধ্যমে সামাজিক ক্ষেত্রেও নানান অবদান রাখছে হুয়াওয়ে। অগ্রযাত্রার পথে, বাংলাদেশের সাথে এই লক্ষ্যেই কাজ করে যাচ্ছে হুয়াওয়ে।
বিস্তারিত জানতে ভিজিট করুন হুয়াওয়ের ওয়েবসাইট www.huawei.com এবং যুক্ত থাকুন আমাদের ফেইসবুক
পেইজে https://www.facebook.com/HuaweiTechBD/

আরও পড়ুন
Loading...