Ultimate magazine theme for WordPress.

বেনাপোলে মাদক নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরের…

কমলগঞ্জে স্বামীকে অচেতন করে স্ত্রীর পরকিয়ায়…

ইনটেলিজেন্ট গাড়ি তৈরির স্মার্ট সরঞ্জাম আনল হুয়াওয়ে

0 ৭৫

বর্তমান খবর : কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন সরঞ্জাম ও সমাধান নিয়ে আসার ঘোষণা দিয়েছে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে।

সম্প্রতি অটো সাংহাই ২০২১ -এ ‘ফোকাসড ইনোভেশন ফর ইনটেলিজেন্ট ভেহিকেলস’শীর্ষক অনুষ্ঠানে হুয়াওয়ে এই ঘোষণা দেয়। অত্যাধুনিক বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন গাড়ি ও এর সরঞ্জাম নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলোকে উল্লেখযোগ্যভাবে সাহায্য করবে এসব সমাধান। পাশাপাশি চীনের অটোমেটিভ খাতের প্রযুক্তিগত উন্নয়নে এবং জ্বালানিসাশ্রয়ী ও স্বয়ংক্রিয় গাড়ি চালনার ক্ষেত্রে পথিকৃৎ হতেও সহায়তা করবে হুয়াওয়ের এসব পণ্য।

এই পদক্ষেপকে হুয়াওয়ে নিজের দীর্ঘমেয়াদী ব্যবসায়িক সফলতার কৌশল হিসেবে বিবেচনা করছে। তাই এক্ষেত্রে,অত্যাধুনিক ও স্বতন্ত্র ড্রাইভিং ব্যবস্থার বিকাশ, বিশেষ করে স্বয়ক্রিয় ড্রাইভিং সফটওয়্যার উন্নয়নে ধারাবাহিকভাবে বিনিয়োগ করবে প্রতিষ্ঠানটি।

এ বছর হুয়াওয়ে পাঁচ হাজার জনের বেশি জনবল নিয়ে একটি দল গঠন করবে, যারা বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন অটোমেটিভ কম্পোনেন্ট এর গবেষণা ও উন্নয়নে নিবেদিতভাবে কাজ করবে এবং এ খাতে হুয়াওয়ে এক বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগ করবে। হুয়াওয়ে এই অটোমেটিভ খাতের প্রযুক্তিগত উদ্ভাবনের বিষয়ে সবসময়ই জোর দিয়ে আসছে কারণ পণ্যের সক্ষমতা বৃদ্ধি করার মাধ্যমে গ্রাহকদের উন্নত পণ্য ও ড্রাইভিং অভিজ্ঞতা দান করাই এর লক্ষ্য।

আর একারণে ইউরোপ, জাপান ও চীনে হুয়াওয়ের আরঅ্যান্ডডি (রিসার্চ এন্ড ডেভেলপমেন্ট) সেন্টারে অনেকদিন থেকেই মেধাবী ইঞ্জিনিয়ারগণ কাজ করে আসছে। এ নিয়ে হুয়াওয়ের ইনটেলিজেন্ট অটোমেটিভ সল্যুশন বিজনেস ইউনিটের প্রেসিডেন্ট উইলিয়াম ওয়্যাং বলেন, “উন্নত প্রযুক্তি ও বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন গাড়ি আরও উপভোগ্য ড্রাইভিং অভিজ্ঞতা প্রদান করবে; এবং এ গাড়ি নির্মাণে হুয়াওয়ের প্রযুক্তিগত সক্ষমতার সাথে গাড়ি নির্মাতাদের গাড়ি নির্মাণে সক্ষমতার সমন্বয় করাই হুয়াওয়ে ইনসাইডের লক্ষ্য”।

অটো সাংহাই ২০১৯ -এ হুয়াওয়ে বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন বাহনের ক্ষেত্রে অটোমেটিভ কম্পোনেট খাতে প্রবেশের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়। এবং বিগত দুই বছরে হুয়াওয়ে বৈশ্বিকভাবে শীর্ষস্থানীয় গাড়ি নির্মাতাদের সাথে কাজ করেছে। এ বছর হুয়াওয়ের ইনটেলিজেন্ট কম্পোনেন্ট ব্যবহার করে বেশ কয়েকটি ফ্ল্যাগশিপ মডেল উন্মোচিত হবে যার মাধ্যমে শুরু হবে হুয়াওয়ের স্মার্ট অটোমেটিভ সল্যুশনের বাণিজ্যিকীকরণ।

অপটিক্যাল টেকনোলজি ও শীর্ষস্থানীয় ভবিষ্যতমুখী প্রযুক্তি নিয়ে বিগত বছরগুলোর অভিজ্ঞতার আলোকে হুয়াওয়ে হাই-পারফরমেন্স এ-আর এইচইউডি চালু করেছে। ১০ এল এ-আর এইচইউডি একটি সাধারণ উইন্ডশিল্ডকে ৭০-ইঞ্চি এইচডি স্ক্রিনে পরিণত করতে পারে এবং ব্যবহারকারীর চোখ নড়াচড়া পর্যবেক্ষণ করে প্রজেকশন এরিয়া সমন্বয় করতে পারে। এর অনন্য ভিজ্যুয়াল আইডেন্টিফিকেশন ও এআই সক্ষমতা দেখার ক্ষেত্রে দারুণ অভিজ্ঞতা নিশ্চিত করবে, পাশাপাশি গাড়ি চালনায় সহায়তা করবে।

ট্রেডিশনাল এমএমওয়েভ রাডারের সুপিরিয়র ডিসট্যান্স ও ভেলোসিটি মেজারমেন্ট সক্ষমতা ব্যবস্থাপনার পাশাপাশি ফোরডি ইমেজিং রাডার উদ্ভাবনী নন-লাইন-অব-সাইট (এনএলওএস) সেন্সিং স্ট্রেন্থ প্রদান করবে।

বাইরের আলোর অবস্থা ও খারাপ আবহাওয়া নির্বিশেষে কাজ করবে এ প্রযুক্তি। এছাড়াও, হুয়াওয়ে ফোরডি ইমেজিং রাডারের রেজ্যুলেশন অনেক বেশি এবং এটি আরও বিস্তৃত সীমায় বস্তুর উপস্থিতি শনাক্ত করতে পারবে।

এ শিল্পখাতের সর্বোচ্চ কম্পিউটিং পাওয়ার নিয়ে এমডিসি ৮১০ বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন ড্রাইভিং কম্পিউটিং প্ল্যাটফর্ম হিসেবে কাজ করবে। এমডিসি কোর ও সম্পূর্ণ টুলচেইন থাকার ফলে এমডিসি ৮১০ ট্র্যাফিক জ্যাম পাইলট (টিজেপি), হাইওয়ে পাইলট (এইচডব্লিউপি) এবং অটো ভ্যালেট পার্কিং (এভিপি) -এর মতো উচ্চস্তরের স্বয়ংক্রিয় ড্রাইভিং ফাংশন ব্যহারের সুযোগ তৈরি করবে।

ওপেন ও স্ট্যান্ডার্ডাইজড প্ল্যাটফর্ম হুয়াওয়ে এমডিসি’র লক্ষ্য বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন ড্রাইভিং শিল্পখাতের প্রবৃদ্ধি ত্বরাণ্বিত করা। পণ্য উন্মোচনের সময় হুয়াওয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে এর অত্যাধুনিক এইচডি ম্যাপ ক্লাউড সার্ভিস ক্যাপাবিলিটি ও রোডম্যাপ সম্পর্কে ঘোষণা দিয়েছে।

বর্তমানে, ইলেকট্রনিক নেভিগেশন ম্যাপ তৈরিতে এবং কম্প্রিহেনসিভ এইচডি ম্যাপ ডাটা কালেকশন ও ম্যাপিং সক্ষমতা বিকাশে হুয়াওয়ে গ্রেড-এ সার্ভেয়িং ও ম্যাপিং দক্ষতা অর্জন করেছে। চার বছর গবেষণা ও উন্নয়নের পর হুয়াওয়ে গাড়ির জন্য বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন থার্মাল ম্যানেজমেন্ট সল্যুশন নিয়ে এসেছ। ইন্টিগ্রেটেড ডিজাইন, সেন্ট্রালাইজড কম্পোনেন্টস ও কন্ট্রোল ফাংশনের মাধ্যমে হুয়াওয়ে টিএমএস জ্বালানি সাশ্রয়ে শতভাগ উন্নতি, ক্যালিব্রেশন এফিসিয়েন্সি ও ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতায় ৬০
শতাংশ উন্নতি অর্জন করেছে।

হুয়াওয়ে বিশ্বের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান। সমৃদ্ধ জীবন নিশ্চিতকরণ ও উদ্ভাবনী দক্ষতা বৃদ্ধির মাধ্যমে একটি উন্নত ও সংযুক্ত পৃথিবী গড়ে তোলাই প্রতিষ্ঠানটির উদ্দেশ্য। নতুন উদ্ভাবনের মাধ্যমে হুয়াওয়ে একটি পরিপূর্ণ আইসিটি সল্যুশন পোর্টফোলিও প্রতিষ্ঠা করেছে, যা গ্রাহকদের টেলিকম ও এন্টারপ্রাইজ নেটওয়ার্ক, ডিভাইস এবং ক্লাউড কম্পিউটিং-এর সুবিধাসমূহ প্রদান করে। প্রতিষ্ঠানটি বিশ্বের ১৭০টির বেশি দেশ ও অঞ্চলে সেবা দিচ্ছে, যা বিশ্বের এক তৃতীয়াংশ জনসংখ্যার সমান।

এক লাখ ৯৪ হাজার কর্মী নিয়ে বিশ্বব্যাপী টেলিকম অপারেটর, উদ্যোক্তা ও গ্রাহকদের সর্বোচ্চ সেবা নিশ্চিত করে ভবিষ্যতের তথ্যপ্রযুক্তি ভিত্তিক সমাজ তৈরির লক্ষ্যে হুয়াওয়ে এগিয়ে চলেছে। শীর্ষস্থানীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে, গত ২১ বছর ধরে বাংলাদেশের তথ্য-প্রযুক্তি শিল্প, টেলিকম অপারেটর এবং স্থানীয় অংশীদারদের সাথে নিবিড়ভাবে কাজ করে যাচ্ছে, যার মাধ্যমে দেশের সাধারণ মানুষের কাছে তথ্য-প্রযুক্তির সেবা পৌঁছে দিয়ে ’ডিজিটাল বাংলাদেশে’র স্বপ্ন পূরণে অসামান্য ভূমিকা রেখে চলেছে প্রতিষ্ঠানটি।

এছাড়া বিভিন্ন সিএসআর কর্মসূচী পরিচালনার মাধ্যমে সামাজিক ক্ষেত্রেও নানান অবদান রাখছে হুয়াওয়ে। অগ্রযাত্রার পথে, বাংলাদেশের সাথে এই লক্ষ্যেই কাজ করে যাচ্ছে হুয়াওয়ে।

বিস্তারিত জানতে ভিজিট করুন হুয়াওয়ের ওয়েবসাইট www.huawei.com এবং যুক্ত থাকুন আমাদের ফেইসবুক
পেইজে https://www.facebook.com/HuaweiTechBD/

আরো জানতে:
http://www.linkedin.com/company/Huawei

http://www.facebook.com/Huawei
http://www.youtube.com/Huawei

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.