আলোচিত সমালোচিতর নেপথ্যে সঙ্গীতশিল্পী ন্যান্সির

বর্তমান খবর : ক্যারিয়ারে যথেষ্ট জনপ্রিয়তা পেয়েছেন সঙ্গীতশিল্পী নাজমুন মুনিরা ন্যান্সি। একইভাবে হয়েছেন তুমুল সমালোচিত। সঙ্গীতজীবন থেকে শুরু করে রাজনৈতিক ও ব্যক্তিজীবন নিয়ে বহুবার আলোচিত হয়েছেন তিনি।

এই শিল্পীর ক্যারিয়ারের সমালোচনার প্রেক্ষিতে দেখা যায়, যতটা না তিনি গান নিয়ে আলোচনায় এসেছেন তার চেয়ে বহুগুণ বেশি ব্যক্তিজীবন নিয়ে খবরের শিরোনামে উঠে এসেছেন। তার সমালোচিত বিষয়গুলোতে এক নজর চোখ বুলিয়ে নেয়া যাক-

খামখেয়ালি আচরণ: ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই নিজের খামখেয়ালি আচরণের কারণে সংগীতপাড়ায় সমালোচিত হয়েছেন ন্যান্সি।

লাগামহীন মুখ : ন্যান্সির কথাবার্তায় কখনোই লাগাম ছিল না। সবাই তাকে নিয়ে ভীত থাকত কখন কাকে কী বলে বসে! নিজের সম্মান রক্ষা করতে তাই কখনোই কেউ তার সঙ্গে কথা বাড়াত না। এই ‘ঝগড়াটে’ স্বভাবের কারণেই তাকে ভিতরে ভিতরে সবাই এড়িয়ে চলত। সর্বশেষ ন্যান্সি ‘কথিত আত্মহত্যা’র চেষ্টার পর সুস্থ হয়েও সবার সঙ্গে ঝগড়ায় জড়ান। বিশেষ করে সাংবাদিকদের সঙ্গে তিনি যথেষ্ট বাজে ব্যবহার করেন। ব্যাপারটি গালাগালি পর্যন্ত গিয়ে গড়ায়। তাকে কেউ ফোন করলেই বাজে ব্যবহারের শিকার হতেন।

অতি মেজাজি: সংগীতপাড়ায় ‘মেজাজি’ হিসেবে ন্যান্সির বিশেষ পরিচিটি আছে। ন্যান্সির সঙ্গে কাজ করতে গিয়ে তার ঠাণ্ডা-গরম মেজাজের কারণে নাস্তানাবুদ হননি এমন কর্মী খুব কমই আছেন। পারিশ্রমিক নিয়েও তিনি নানা বিতর্কিত ঘটনা জন্ম দিয়েছেন।

একাধিক বিয়ে : বিয়ে নিয়েও সমালোচিত ন্যান্সি। ব্যক্তিজীবনে একাধিক বিয়ে করেছেন এই সঙ্গীতশিল্পী। প্রথম স্বামী ব্যবসায়ী আবু সাঈদ সৌরভের সঙ্গে প্রেম করে বিয়ে করেন ন্যান্সি। বিয়ের পর গায়িকা হিসেবে পরিচিতি পান তিনি। তখন স্বামীর সঙ্গে মানসিক দূরত্ব হতে থাকে তার। কারণ ন্যান্সি সদ্য জনপ্রিয় হওয়ায় ছিলেন রঙিন স্বপ্নে, আর তার স্বামী তাকে রাখতে চেয়েছিলেন স্বাভাবিক। এ থেকেই দ্বন্দ্ব শুরু।

বিভিন্ন সূত্রে এটাও জানা যায়, ন্যান্সির কারণে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে তার প্রথম স্বামী মাদকাসক্ত হয়ে পড়েন। পরবর্তীতে স্বামীকে ডিভোর্স দেন ন্যান্সি। প্রচলিত আছে, ন্যান্সি যাকে দ্বিতীয় বিয়ে করেছেন সে ছিল প্রথম স্বামীর বন্ধু। সেখান থেকেই পরিচয়।

স্বামীর সামাজিক মর্যাদা: ন্যান্সির দ্বিতীয় স্বামী নাজিমুদ্দিন জায়েদ পেশায় ময়মনসিংহ পৌরসভার সহকারী। জনপ্রিয় একজন শিল্পী হয়েও এমন একজন মানুষকে বিয়ে করায় শুরুতে প্রশংসিত হন ন্যান্সি। কিন্তু পরবর্তীতে আত্মীয়-স্বজন এবং পরিবারের কাছে হেয়প্রতিপন্ন হওয়ায় ন্যান্সির মনে স্বামীর সামাজিক মর্যাদা নিয়ে হতাশা জন্মায়। বিষয়টিকে তিনি শান্তভাবে সমাধান না করে উল্টো নিজের স্বভাব অনুযায়ী উত্তেজিত হয়ে দ্বন্দ্বে জড়ান। এ নিয়ে তার নিজের শহরে নানা সমালোচনা রয়েছে।

রাজনৈতিক উচ্চাভিলাষ: ন্যান্সির মধ্যে রাজনৈতিক উচ্চাভিলাষ আছে বলে মনে করে বিভিন্ন মহল। বর্তমান সরকারের সমালোচনা এবং বিএনপির প্রশংসা করে তিনি ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন। এরপর তিনি সবাইকে বলে বেড়াচ্ছেন, সরকারবিরোধী স্ট্যাটাস দেওয়ায় অঘোষিতভাবে তার সব কাজ বন্ধ করে দেওয়া হয়। এতে তার রাজনৈতিক উচ্চাভিলাষ আরও পরিষ্কার হয়।

ঘুমের বড়ি নিয়ে বিভ্রান্তিকর তথ্য: সুস্থ হয়ে ন্যান্সি বলছেন, তিনি আত্মহত্যা করতে চাননি। ঘুমানোর জন্য তিনি বড়ি খেয়েছেন। একেক গণমাধ্যমে ঘুমের ওষুধের সংখ্যা একেকটা বলছেন। এ নিয়ে তিনি তুখোড় সমালোচিত হন। প্রথমে যে ডাক্তার বলেছিলেন, তিনি আত্মহত্যার চেষ্টা চালিয়ে প্রচুর ঘুমের বড়ি খেয়েছেন, সেই ডাক্তার মিথ্যা বলেছেন বলে দাবি করেন ন্যান্সি।

সঙ্গীতশিল্পী আসিফের বিরুদ্ধে মামলা: গায়ক আসিফ আকবরের বিরুদ্ধে মামলা করে আলোচনার জন্ম দেন ন্যান্সি। তবে এমন অভিযোগের কোন সত্যতা নেই বলে দাবি করেন আসিফ।

দ্বিতীয় স্বামীর থেকে আলাদা থাকা: আজ (২৫ এপ্রিল) ফেসবুক স্ট্যাটাসে ন্যান্সি জানিয়েছেন, দ্বিতীয় স্বামী জায়েদের সঙ্গে ডিভোর্স না হলেও দীর্ঘদিন ধরেই আলাদা থাকছেন তিনি। তাদের মাঝে মধ্যেই ফোনালাপ হয়। যেহেতু স্বামী-স্ত্রীর বাইরেও তারা দীর্ঘদিনের বন্ধু কাজেই বোঝাপড়াটা মন্দ নয়। কে সঠিক, কে বেঠিক এ নিয়ে ফিসফিস করতে নিষেধ করে সরাসরি ন্যান্সি কিংবা তার স্বামী জায়েদকে জিজ্ঞাসা করতে বলেছেন তিনি।

আরও পড়ুন
Loading...